ছোটদের প্রোগ্রামিং শেখা এখন আগের চেয়েও সহজ। কারণ দ্বিমিক প্রকাশনী থেকে বের হয়েছে তামিম শাহরিয়ার সুবিন-এর "পাইথন দিয়ে প্রোগ্রামিং শেখা"! বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন

[প্রোগ্রামিং বইঃ পরিশিষ্ট] প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতা

প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতা হচ্ছে প্রোগ্রামারদের মধ্যে লড়াই। এর মানে কিন্তু এই নয় যে প্রোগ্রামাররা একে অপরের সঙ্গে মারামারি করবে আর শেষ পর্যন্ত যে টিকে থাকবে সে-ই বিজয়ী। আসলে প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতা হচ্ছে একটি পরীক্ষার মতো যেখানে প্রত্যেককে একটি নির্দিষ্ট সময়ে নির্দিষ্টসংখ্যক প্রোগ্রামিং সমস্যার সমাধান করতে দেওয়া হবে। যে সবচেয়ে বেশি সমস্যার নির্ভুল সমাধান করবে সে বিজয়ী হবে। আর দুজন যদি সমানসংখ্যক সমস্যার সমাধান করে, তবে তাদের মধ্যে যে কম সময়ে করেছে সে বিজয়ী। তবে স্কুল-কলেজের পরীক্ষার সঙ্গে এর পার্থক্য হচ্ছে, এখানে বই থেকে সরাসরি প্রশ্ন করা হয় না। তাই মুখস্থ করার কোনো সুযোগ নেই। বিচারকেরা অনেক সময় নিয়ে প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতার সমস্যা তৈরি করেন। এর মধ্যে সহজ সমস্যাও থাকে আবার খুব কঠিন সমস্যাও থাকে।

স্কুল-কলেজের ছাত্রছাত্রীদের জন্য সবচেয়ে বড় প্রতিযোগিতা হচ্ছে আইওআই (IOI– International Olympiad in Informatics)। 1989 সাল থেকে প্রতিবছর এ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। একেক বছর একেক দেশে প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। বিগত চার বছর যাবৎ বাংলাদেশ এ প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে আসছে। এখন পর্যন্ত আমাদের সেরা অর্জন হচ্ছে 2009 সালে আবিরুল ইসলামের রৌপ্য পদক (সিলভার মেডেল)। IOIতে অংশগ্রহণ করার জন্য বাংলাদেশ দল গঠনের কাজটি করা হয় দুই ধাপে। প্রথমে বিভাগীয় ইনফরমেটিক্স অলিম্পিয়াড। তারপর বিভাগীয় পর্যায়ের বিজয়ীদের নিয়ে জাতীয় ইনফরমেটিক্স অলিম্পিয়াড অনুষ্ঠিত হয়। জাতীয় অলিম্পিয়াডের বিজয়ীদের মধ্য থেকেই দলের সদস্য বাছাই করা হয়।

বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ের ছাত্রছাত্রীদের জন্য সবচেয়ে বড় প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতা হচ্ছে এসিএম আইসিপিসি (ACM ICPC– ACM International Collegiate Programming Contest)। এর জন্য দল বাছাই অনেকটা বিশ্বকাপ ফুটবলের মতো হয়। প্রতি মহাদেশ থেকে প্রতিযোগিতার মাধ্যমে দল নির্বাচন করা হয়। একটি দলে তিনজন সদস্য এবং একজন প্রশিক্ষক থাকেন। মজার ব্যাপার হচ্ছে দলের সদস্যদের কিন্তু কম্পিউটার বিজ্ঞানের শিক্ষার্থী হতে হবে, এমন কোনো কথা নেই। যেকোনো বিভাগের শিক্ষার্থী এই প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করতে পারে। বাংলাদেশের প্রতিযোগিরা ঢাকায় ICPC Regional Contest-এ অংশগ্রহণ করে। এছাড়া ভারত ও আশেপাশের দেশের ICPC Regional Contest-এও বাংলাদেশের প্রতিযোগীদের অংশগ্রহণের সুযোগ রয়েছে এবং প্রায়ই আমাদের দেশের কয়েকটি দল ওইসব প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে। ICPC Regional Contest-এ বিজয়ী দলগুলো সুযোগ পায় চূড়ান্ত পর্বে (ICPC World Finals) অংশগ্রহণ করার। 1998 সালের পর থেকে প্রতি বছরই বাংলাদেশ থেকে কমপক্ষে একটি দল চূড়ান্ত পর্বে অংশগ্রহণের যোগ্যতা লাভ করে যা আমাদের দেশের প্রোগ্রামারদের কৃতিত্বের পরিচয় বহন করে। তোমরা এ বিষয়ে উইকিপিডিয়াতে আরও তথ্য পাবে এই লিংকে: http://en.wikipedia.org/wiki/ACM_ICPC_Dhaka_Site।

এছাড়া ইন্টারনেটে অনুষ্ঠিত হয় আরও নানা ধরনের প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতা যেখানে স্কুল-কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র, শিক্ষক ও পেশাজীবীরা অংশ্রগ্রহণ করতে পারেন। এদের মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ তিনটি হচ্ছে Google Code Jam (http://code.google.com/codejam), Topcoder (http://www.topcoder.com/tc) এবং Codechef (http://www.codechef.com/)। এই প্রতিযোগিতাগুলো অত্যন্ত কঠিন, তাই এতে অংশগ্রহণের জন্য পর্যাপ্ত দক্ষতা থাকতে হবে। তবে এসব প্রতিযোগিতায় কিন্তু বাংলাদেশের প্রোগ্রামাররা বেশ ভালো অবস্থানে রয়েছে।

প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতায় ভালো করতে হলে প্রোগ্রামিংয়ে দক্ষতার পাশাপাশি অ্যালগরিদম ও গণিতে বিশেষভাবে দক্ষ হতে হয়। জ্যামিতি, কম্বিনেটরিক্স, সংখ্যাতত্ত্ব ইত্যাদির যথেষ্ট জ্ঞানের পাশাপাশি সমস্যা সমাধানের দক্ষতা অর্জন করতে হয়। এজন্য লেখাপড়ার পাশাপাশি নিয়মিত প্রোগ্রামিং সমস্যা সমাধানের কোনো বিকল্প নেই। আর বিভিন্ন ওয়েবসাইটে নিয়মিত প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয় যেখানে তুমি অংশগ্রহণ করতে পারো ইন্টারনেটের মাধ্যমে।

২টি মন্তব্য:

  1. ভাইয়া, ভিবিন্য অনলাইন জাজে প্রোগ্রামিং সমস্যাগুলাই বুঝতে পারিনা। একটা প্রোগ্রাম সল্ভ করতে গিয়ে যদি প্রবলেমই না বুঝি...... তখন উৎসাহ ই হারিয়ে ফেলি :(

    উত্তরমুছুন
  2. how to be good at algorithms?Do you have any suggestions for that??It would be really helpful if help in this particular subject.Thank you.

    উত্তরমুছুন

এখানে বিষয়সংশ্লিষ্ট মন্তব্য কিংবা প্রশ্ন করা যাবে। বাংলায় মন্তব্য করার সময় বাংলা হরফে লিখতে হবে। আর রোমান হরফে লিখলে ইংরেজিতে লিখতে হবে। নতুবা মন্তব্য প্রকাশ করা হবে না। ধন্যবাদ।